অতিমানবের প্রতিকৃতিতে মহামানব

প্রকাশিত: ৫:৫০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৫, ২০১৯

অতিমানবের প্রতিকৃতিতে মহামানব

শিকদার মুহাম্মদ কিব্রিয়াহ

অতীন্দ্রিয়ের অশরীরী কোন সত্তা তুমি নও; তুমি অতীন্দ্রিয়ে বিজ্ঞ ইন্দ্রিয়জ অবয়ব। ছিলে না কোন কল্পলোকের রাজকুমার—রঙিন মখমলে ঝলমলে রাজকন্যার আকুল দয়িত; গহীন পাতালপুরীর দানবকুঠুরীতে বন্দিনী রাজকুমারীর ত্রাতা ডালিমকুমার। তুমি ছিলে না ছিটকে প’ড়া তারকা, নিক্ষিপ্ত ধুমকেতু, উড়ন্ত সসার কিংবা মঙ্গলগ্রহে প্রেরিত পাথফাইন্ডার। বরং কালের কলস ভেঙ্গে তুমি অস্তিত্বশীল হয়েছিলে বিশ্বনেতার সুযোগ্য আসনে।

ইন্দ্রিয়-বিচ্ছিন্ন হয়ে নয়, ইন্দ্রিয়কে ধারণ করেই তুমি ইন্দ্রিয়কে করেছ জয়—হয়েছ অতীন্দ্রিয় অভিযাত্রী। অসীম আলোকবর্ষ দিয়েছ পাড়ি। পৌছে গেছ পরমসত্তার একান্ত কাছাকাছি।

রাসুল(সা:)! তুমি ভাবুক ছিলে, বাউল ছিলে না। প্রেমিক ছিলে, পাগল ছিলে না। সেনানায়ক ছিলে, সন্ত্রাসী ছিলে না। শাসক ছিলে, শোষক ছিলে না। বরং শোষিত-নির্যাতিতের পক্ষে ঝলসে উঠেছে তোমার ন্যায়ের তরবারি। বস্তু ও ভাবের সুষম সমন্বয় তুমি—জীবনবাদী জীবনাদর্শের বস্তুনিষ্ঠ রূপকার।

মৃত্তিকার নাভিমূলে প্রোথিত ছিল নুর। স্থিত যৌবনে ঝলসে ওঠে তাই জীবন্ত পুঁতে ফেলা কন্যাশিশুর কবরের পাশে—অন্ধকার আকাশে পূর্ণিমার ঝলমলে চাঁদ। পৃথিবীর কেন্দ্রবিন্দুতেই তুমি আবির্ভুত হলে হে নুরের নিউক্লিয়াস! সেই নুর বিকীর্ণ হল চারদিকে—বৃত্তের ব্যাসার্ধ বেড়েই চললো। সাড়ে আট লক্ষ বর্গমাইল ভূ-ভাগ দ্রুতই তোমার অস্তিত্বের অনুগত হয়ে গেল।

অতঃপর তোমার প্রত্যক্ষ অস্তিত্ব প্রগত হল—খিলাফতে রাশেদারও একসময় হল অবসান। শুরু হল অতীন্দ্রিয়ের ওপর ইন্দ্রিয়ের উস্কানি। সূচিত হল পতনপর্বের। তোমার অনুসারীরা চরিত্র হারাতে শুরু করলো। কলুষিত করার চেষ্টা চললো তোমার মহান চরিত্রকেও। তবুও তোমার আবেদন ফুরিয়ে যায় নি—অশান্ত পৃথিবী তোমাকেই ডাকছে মিনতি ভরে।

ষড়যন্ত্রের সতরঞ্চিতে ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে আত্মঘাতী বিষ। তোমার অস্তিত্ব বিকৃতির আয়োজন চলে সাড়ম্বরে। মাটি ও মানুষের নেতৃত্বের আদর্শিক আসন থেকে তোমাকে করা হয়েছে নির্বাসিত। তুমি এখন দেবতার মতো পূজনীয়—কালের যীশু! উপাস্য হতে হয়ত খুব বাকি নেই। তোমার ইশকের দোহাই দিয়ে এখন আলিশান আসন সাজানো হয়—অশরীরী তুমি এসে বসবে বলে, দাঁড়িয়ে সমস্বরে সালাম দেয়া হয় তুমি হাজির হও বলে!

রাসুল আমার! তুমি এভাবে আসো নাকি? বসো কী আসন জুড়ে? কাকে বলে গেছো এমন অভিনব আগমনী বার্তা! তোমার রূপক মর্যাদার উচ্চাসন এখন আল্লাহর আরশের সাথে টক্কর খায়! খতম তোমার নেতৃত্ব। তোমার উত্তরসুরী আহলে আলখেল্লাধারীরা এখন সেক্যুলার নেতৃত্বকে সংবর্ধনা জানায়। মৃত্তিকার জমিনে তোমার জায়নামাজ যেন জড়িয়ে না যায় সেজন্যে আকাশে ভাসে তোমার পবিত্র আসন।

আশেকে রাসুলের আবেগের শরীরে ইশকের উস্কানি—রাজপথে জসনে জুলুস। তোমার মনোদৈহিক সত্তায় চলে সার্জারি। মহামানব নয়—অতিমানবের অতিলৌকিক আকৃতিতে তোমাকে নির্বাসিত করা হচ্ছে। তুমি এখন প্রজ্ঞা ও বোধের অতীত—কায়াহীন ছায়া—কিসসার নায়ক—জিউস-প্রমিথিয়াস!
মধ্যপ্রাচ্যের দেবতা হয়ে নয়, মানবতার নেতা হয়ে ফের এসো হে প্রিয় রাসুল(সা:) মুক্তিকামী মানুষের মন ও মননে।

faster