তোফায়েল বললেন, ‘আমি দুঃখিত বিব্রত লজ্জিত

প্রকাশিত: ৩:৫৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৯

তোফায়েল বললেন, ‘আমি দুঃখিত বিব্রত লজ্জিত

হ্যালো বাংলাদেশ নিউজ:

ডাকসু ভিপি নুরের ওপর হামলাকে দুর্ভাগ্যজনক বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান নেতা ও ডাকসুর সাবেক ভিপি তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেন, ‘আজ দুর্ভাগ্য এ ধরনের ঘটনা ঘটে। আমি দুঃখিত, বিব্রত এবং লজ্জিত। আমার এ প্রসঙ্গে বলার কিছুই নেই।’

সোমবার রাজধানীর বনানী কবরস্থানে আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাকের ৮ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দলের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

এসময় তোফায়েল বলেন, ‘ছাত্র রাজনীতির বিষয়ে কোনো বক্তব্য দিতে গেলে আমি বিব্রতবোধ করি। আমাদের দিনে মতের ভিন্নতা ছিল, যেমন ১৯৬৯ সালে আমরা সর্বদলীয় ছাত্রসমাজ গঠন করেছিলাম। আমাকে ডাকসুর ভিপি হিসেবে আহ্বায়ক করা হয়েছিল। ছাত্র ইউনিয়ন (মতিয়া), ছাত্র ইউনিয়ন (মেনন), জাতীয় ছাত্র ফেডারেশনের একটা অংশ- আমাদের তো আদর্শের ভিন্নতা ছিল। এক আদর্শ ছিল না, কিন্তু আমরা ১১ দফা কর্মসূচী প্রণয়ন করে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন করে ১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধুকে মুক্ত করে এনেছিলাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘সমস্ত বাংলাদেশের ছাত্রসমাজ ঐক্যবদ্ধ ছিল। আজ দুর্ভাগ্য এ ধরনের ঘটনা ঘটে, আমি খুবই দুঃখিত, বিব্রত এবং লজ্জিত। এ সমন্ধে বলার আমার কিছু নেই। কিন্তু আমি আমার অতীতের স্মৃতির পাতায় প্রবেশ করে সেই দিনগুলোর কথা যখন আমি মনে করি, জীবনের সেই সোনালী দিন; আমি ব্যথিত-লজ্জিত, এর বেশি আমার কিছু বলার নেই।’

ডাকসু ভিপি প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর এ সদস্য বলেন, ‘যারা ডাকসুর ভিপি হয় তাদেরও সতর্কতার সঙ্গে চলা উচিত, কথা বলা উচিত। এমন কিছু করা উচিত নয়, যেটাতে প্রতিপক্ষের মনে আঘাত লাগতে পারে৷ ডাকসুর মানে সকলের। আমাকে কেন সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক করা হয়েছিল? কারণ ডাকসু মানে সকলের।’

উদাহরণ তুলে ধরে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী এ নেতা আরও বলেন, ‘আমি যেমন এখন ভোলার নির্বাচিত এমপি, ভোলার সকল লোক আমার লোক, দল যার যার তার তার; কিন্তু সামাজিকভাবে ‘আমরা’। ডাকসুর ভিপি যিনি আছেন এবং কমিটিতে যারা আছেন তাদের সকলের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা উচিত। অতিমাত্রায় পলিটিক্স নিয়ে আসলে এ ধরনের হানা হানি হবেই। সেজন্য সকলকে সতর্ক থাকা উচিত বলে আমি মনে করি।’

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ