নিরাপত্তা হেফাজতে থেকে ও আসামীর মাতায় আইএস এর টুপি,তদন্ত কমিটি গঠন।

প্রকাশিত: ৩:২৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৭, ২০১৯

নিরাপত্তা হেফাজতে থেকে ও আসামীর মাতায় আইএস এর টুপি,তদন্ত কমিটি গঠন।

হ্যালো বাংলাদেশ নিউজ ডেস্কঃ হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলা মামলার রায় ঘোষণার পর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সাত জঙ্গির কারও মধ্যে কোনো অনুশোচনা দেখা যায়নি। বরং আদালত কক্ষ থেকে বের করার সময় তাঁরা স্লোগান দিতে থাকেন।

এ সময় আসামি রাকিবুল ইসলাম ওরফে রিগ্যান মাথায় আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের (ইসলামিক স্টেট) পতাকার প্রতীক সংবলিত টুপি পরে ছিলেন। এরপর আসামিদের প্রিজন ভ্যানে তোলার পর আরও এক জঙ্গিকেও কালো কাপড়ে তৈরি একই রকম টুপি পরতে দেখা যায়। ওই জঙ্গির নাম জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি রাকিবুল হাসান রিগ্যান কীভাবে আইএস’র টুপি পেলো সে ব্যাপারে কারা কর্তৃপক্ষ তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

আইজি প্রিজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোস্তাফা কামাল পাশা জানিয়েছেন, ‘এই টুপি সে কারাগার থেকে সংগ্রহ করেছে কি না তা খতিয়ে দেখতে এডিশনাল আইজি প্রিজনকে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। কারও অবহেলা পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

তিনি আরও জানান, রায় পরবর্তী প্রতিক্রিয়ার জন্য সারা দেশের কারাগারগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

আসামির মাথায় আইএসের টুপির বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ইতোমধ্যে সমালোচনা শুরু বইছে। প্রশ্ন তোলা হচ্ছে, কারাবেষ্টনির মধ্যে কীভাবে আসামিদের মাথায় এ ধরনের টুপি এলো?

এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী গোলাম সারোয়ার খান জাকির বলেন, ‘আসামিদের মাথায় আইএসের টুপি ছিল কি-না তা আমি জানি না।’ ভিডিওতে দুজন আসামির মাথায় আইএসের টুপি দেখা গেছে উল্লেখ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমিও অনলাইনে দেখেছি।’

আসামিপক্ষের আইনজীবী দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘আসামিদের মাথায় আইএসের টুপি কীভাবে এসেছে সেটা আমার জানা নেই। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যরা এ বিষয়ে বলতে পারবেন।’

তবে তাৎক্ষণিকভাবে এ বিষয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ