সাংবাদিক থেকে স্পেনের রাণী

প্রকাশিত: ৩:১৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৫, ২০১৯

সাংবাদিক থেকে স্পেনের রাণী

লেতেজিয়া অরতিজ, ২০০০ সালে স্পেনের সেরা সাংবাদিকের পুরষ্কার পান। এরপর ২০০২ সালে তার এক বন্ধুর পার্টিতে পরিচয় হয় স্পেনের রাজকুমার ফিলিপিও এর সঙ্গে। পরে ২০০৩ সালে তারা বিয়ের ঘোষণা দিলেও ২০০৪ সালে রাজকীয় ভাবে তারা বিয়ে করেন।

লেতেজিয়া অরতিজ ১৯৭২ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর স্পেনের এক মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। মাদ্রিদের পাবলিক স্কুলে পড়াশোনা এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে স্নাতক পাশ করেন।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবন অতিক্রম করার পর তিনি স্পেনের পাবলিক টেলিভিশনে কাজ শুরু করেন। সেখানে তিনি ইরাক যুদ্ধ সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক খবর নিয়ে কাজ করেন। পরে তিনি অনেক বছর ঐ টিভি চ্যানেলের নিউজ প্রেসেন্তার হিসেবেও কাজ করেন। সাংবাদিকতায় বিশেষ ভূমিকা রাখার জন্য ২০০০ সালে তাকে স্পেনের সেরা সাংবাদিক হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

২০০২ সালের লেতেজিয়া অরতিজ তার এক বন্ধুর পার্টিতে যান। সেখানে গিয়ে তার সাথে স্পেনের রাজকুমার ফিলিপিও এর পরিচয় হয়। সেই পরিচয়ের ফলে এক সময় তারা ভালো বন্ধু হয়ে উঠে। ২০০৩ সালে তারা দুই জন একসাথে অনেকগুলো দেশ ভ্রমণ করেন। যদিও অরতিজ একজন ডিভোর্স নারী ছিলেন। ১৯৯৮ সালে তার সাথে এক লিটারেচার প্রফেসরের বিয়ে হলেও তা ১বছরের বেশি টেকেনি। কিন্তু এগুলো তোয়াক্কা না করে রাজকুমার ফিলিপিও ২০০৩ সালে অরতিজকে বিয়ের প্রস্তাব দেন।

পরে ঐ বছরের ১নভেম্বর তারা আনুষ্ঠানিক ভাবে বিয়ের প্রস্তাব দেন।২০০৪ সালের মে এর ২২ তারিখ তারা রাজকীয়ভাবে তাদের বিয়ে সম্পাদন করেন। এরপর থেকে বদলে যায় লাতিজিয়ার জীবন। রাজকীয় চালচলনে অভ্যস্ত হয়ে ওঠেন তিনি। তাছাড়া, এতদিন যিনি খবরের পেছনে দৌড়তেন। এবার তার পেছনেই ক্যামেরা নিয়ে দৌড়তে শুরু করে সাংবাদিকরা।
২০০৫ সালে প্রিন্স ফিলিপ এবং লাতিজিয়ার প্রথম সন্তানের জন্ম হয়। নাম রাখা হয় লিওনর। এরপর ২০০৮ সালে সোফিয়া নামে আরও এক কন্যা সন্তানের জন্ম হয় তাদের।২০১৪ সালে ১৯ জুন রাজা জুয়ান কার্লোসের মৃত্যুর পর ফিলিপ এবং লাতিজিয়া স্পেনের রাজা এবং রাণী হন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ