ওসমানীনগরে ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে করোনা;
করোনা উপসর্গে ১ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত: ৭:৪২ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০২০

ওসমানীনগরে ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে করোনা;<br>করোনা উপসর্গে ১ জনের মৃত্যু

আলিম রাজ:সিলেটের ওসমানীনগরে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক রিকশাচালকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার তাজপুর দুলিয়ার বন্দ গ্রামের বাসিন্দা। করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া রিকশাচালকের নাম মোঃ হাবিব মিয়া। তিনি কিশোরগঞ্জের আব্দুল আহাদের পুত্র।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা করোনা সংক্রান্ত মেডিকেল টিমের প্রধান ডা. সাকিব আব্দুল্লাহ চৌধুরী।

জানা যায়, মৃত আব্দুল আহাদ কয়েকদিন ধরে জ্বর, সর্দি, কাশিতে ভুগছিলেন। করোনা পরীক্ষার জন্য তাঁর নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। পরীক্ষার ফলাফল আসলে বিস্তারিত জানা যাবে।

এদিকে, ওসমানীনগরে শুক্রবার (১৫ মে) করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন পল্লী বিদ্যুতের এক লাইন টেকনিশিয়ান। সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের ল্যাবে নমুনা পরীক্ষার পর ফলাফলে তার করোনা পজিটিভ আসে। শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ই-মেইলের মাধ্যমে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজের ল্যাব থেকে রিপোর্ট জানানো হয়। এ নিয়ে উপজেলায় ৩জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে।

করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি সিলেট-১ এর ওসমানীনগরের খাশিকাপন জোনাল অফিসে লাইন টেকনিশিয়ান পদে কর্মরত আছেন। তিনি হবীগঞ্জ জেলার বাসিন্দা। বর্তমানে তিনি স্ত্রী সন্তান নিয়ে তাজপুরবাজারে হাজী মশ্রব আলী কমপ্লেক্সের পঞ্চম তলায় ভাড়া থাকেন।

ওসমানীনগর উপজেলা করোনা সংক্রান্ত মেডিকেল টিমের প্রধান ডা.সাকিব আব্দুল্লাহ চৌধুরী ওসমানীনগরে এবার পল্লী বিদ্যুতের একজন লাইন টেকনিশিয়ানের করোনা সনাক্ত হবার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, চলতি ৬ই মে শরীরে জ্বর থাকায় আক্রান্ত ব্যক্তি নমুনা দিয়েছিলেন। শুক্রবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে আমরা ই-মেইলের মাধ্যমে করোনা সনাক্তের বিষয়টি অবহিত হই। আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে ফোনে কথা হয়েছে তাকে বাসা থেকে বের না হতে বলা হয়েছে। আজ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে আক্রান্ত ব্যক্তির বাসা মশ্রব আলী কমপ্লেক্স লকডাউন করা হবে। এবং আক্রান্ত ব্যক্তির পরিবারের সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ সহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এছাড়া ওসমানীনগরে গত ৩০ এপ্রিল প্রথম উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের রাইকদাড়া (নোয়াগাঁও) গ্রামের ৫৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তির করোনা সনাক্ত হয়। গত ২৬ এপ্রিল শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যা নিয়ে ওই ব্যক্তি সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। চিকিৎসকরা সন্দেহজনক মনে করে এই ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে প্রেরণ করেন। এরই মধ্যে রোগীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে হাসপাতাল থেকে বাড়িতে ফিরে আসেন। তারপর ওসমানীনগরের ওই ব্যক্তির করোনা রিপোর্ট পজিটিভ জানিয়ে রিপোর্ট আসে। এর পর গত ৫ই মে ওসমানীনগরে ২য় করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়। আক্রান্ত ঢাকা ফেরত ২৪ বছর বয়সী তরুণ গোয়ালাবাজার ইউপির পূর্ব ব্রাহ্মণ গ্রামে বাসিন্দা। তিনি কয়েকদিন আগে বালাগঞ্জে তাঁর আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে কিছুটা অসুস্থতাবোধ করলে করোনা সন্দেহে নমুনা পরীক্ষা করতে দেন। নমুনা প্রদানের ১৪ দিন পর তার রিপোর্ট আসলে করোন ভাইরাস ধরা পরে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ