জামাল খাশোগি হত্যার ঘটনায় ২০ সৌদি নাগরিককে যাবজ্জীবন সাজা

প্রকাশিত: ৯:৪১ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৩, ২০২০

জামাল খাশোগি হত্যার ঘটনায় ২০ সৌদি নাগরিককে যাবজ্জীবন সাজা

হ্যালো বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ডেস্কঃসৌদি আরবের আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার ঘটনায় ২০ সৌদি নাগরিককে যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছে তুরস্কের একটি আদালত। এদের মধ্যে সৌদি যুবরাজ সালমানের সহযোগী-ও রয়েছেন।ইস্তাম্বুলের সরকারি আইনজীবীরা ১১৭ পৃষ্ঠার অভিযোগ তৈরি করে সৌদি আরবের এসব নাগরিকের শাস্তি দাবি করেন। ইস্তাম্বুলের একটি আদালত আইনজীবীদের অভিযোগ আমলে নিয়ে ২০ জনের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করে।তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আনাদোলু জানিয়েছে, আদালতের রায়ে সৌদি আরবের সাবেক গোয়েন্দা উপপ্রধান আহমেদ আল-আসিরি এবং সৌদি যুবরাজের একান্ত সহযোগী সৌদ আল-কাহতানিকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।তুর্কি আদালতের ঘোষিত রায়ে বলা হয়েছে, সৌদি আরবের বর্তমান গোয়েন্দা কর্মকর্তা মেজর জেনারেল মনসুর ওসমান এম আবু হুসাইনকে যুবরাজ সালমানের কার্যালয় থেকে খাশোগিকে হত্যার নির্দেশ দেয়া হয়। আহমেদ আসিরি তাকে সাংবাদিক খাশোগিকে ধরে আনার দায়িত্ব দেন। খাশোগি আসতে না চাইলে তাকে হত্যা করার নির্দেশ দেন সাবেক গোয়েন্দা উপপ্রধান আসিরি।জামাল খাশোগি ছিলেন একসময় সৌদি রাজ পরিবারের ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি এবং পরামর্শক। কিন্তু যুবরাজ বিন সালমান ক্ষমতাধর হয়ে ওঠার পর তিনি সৌদি সরকারের কঠোর সমালোচকে পরিণত হন।খাশোগি হত্যাকাণ্ডের জন্য তুর্কি আদালতের রায়ে আসিরি এবং কাহতানিকে দায়ী করা হয়েছে। তাদের দু জনকেই যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় দিয়েছে আদালত। বাকিদের ব্যাপারেও একই রায় দিয়েছে তুর্কি আদালত।প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরে সৌদি কনস্যুলেটে বিবাহ বিচ্ছেদের কাগজপত্র আনতে গিয়ে নিখোঁজ হন খাশোগি। পরে জানা যায়, তাকে কনস্যুলেট ভবনের অভ্যন্তরেই হত্যা করা হয়েছে। প্রথম থেকেই এই হত্যাকাণ্ডের জন্য সৌদি আরবকে দায়ী করেছিল তুরস্কের। প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে চাপে পড়ে এর দায় স্বীকার করে। সৌদি সরকার এ ঘটনায় কয়েকজনকে শাস্তিও দিয়েছে। কিন্তু এই রায় সন্তুষ্ট করতে পারেনি আঙ্কারাকে। কেননা তারা শুরু থেকেই বলে আসছে, সৌদি যুবরাজের প্রত্যক্ষ নির্দিশেই খুন করা হয়েছে খাশোগিকে। যে কারণে সৌদি নাগরিকদের শাস্তি দিল তুর্কি আদালত।সূত্র:পার্স টুডে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ