পশ্চিম তীরে ইসরায়েলের বসতি স্থাপনের বিষয়ে হুঁশিয়ারি দেন জাতিসংঘের মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক প্রধান নিকোলায় ম্লাদেনভ

প্রকাশিত: ২:৩০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৬, ২০২০

পশ্চিম তীরে ইসরায়েলের বসতি স্থাপনের বিষয়ে হুঁশিয়ারি দেন জাতিসংঘের মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক প্রধান নিকোলায় ম্লাদেনভ

হ্যালো বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

 পশ্চিম তীরে ইসরায়েলের দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে অবস্থান স্পষ্ট করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও বৃটেন। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের এক ভিডিও কনফারেন্সে পশ্চিম তীরে ইসরায়েলের বসতি স্থাপনের বিষয়ে হুঁশিয়ারি দেন সংস্থাটির মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক প্রধান নিকোলায় ম্লাদেনভ। তিনি বলেন, ইসরায়েল যদি পশ্চিম তীরে বসতি স্থাপন অব্যাহত রাখে তা হবে আন্তর্জাতিক আইনের বড় লঙ্ঘন। এরমধ্য দিয়ে, যে দুই রাষ্ট্র সমাধানের কথা চিন্তা করা হয়েছে তা নষ্ট হয়ে যাবে এবং উভয় পক্ষের মধ্যে আলোচনার রাস্তা বন্ধ হয়ে যাবে।

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু দেশটির ‘প্রো-সেটেলমেন্ট’ ভোটারদের ভোট পেয়েছেন। জর্ডানের পশ্চিম তীরে বসতি স্থাপনের পরিকল্পনাকে তিনি তার ম্যানিফেস্টো হিসেবে ব্যবহার করেছেন। দেশটির রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা নিশ্চিত হওয়ার মধ্য দিয়ে তার এই পরিকল্পনা আরো পাকাপোক্ত হয়েছে। এই স্থিতিশীলতাকে স্বাগত জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

বুধবার দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন, হোয়াইট হাউজ ইসরায়েলের এই জোটকে স্বাগত জানায়। তিনি উল্লেখ করেন, এখন পশ্চিম তীরে বসতি স্থাপন সম্পূর্ন ইসরায়েলের ওপর নির্ভর করে।

তবে এর কঠিন সমালোচনা করেছে বৃটেন, ফ্রান্স, জার্মানি ও বেলজিয়াম। ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র নীতি নির্ধারক জোসেফ বোরেল জাতিসংঘের ওই ভিডিও কনফারেন্স শেষে সংস্থাটির কাছে একটি চিঠি পাঠান। এতে তিনি বলেন, ১৯৬৭ সালে জর্ডানের পশ্চিম তীর দখল নিয়ে ইইউর অবস্থান পরিবর্তিত হয়নি। ইইউ এই অঞ্চলের ওপর ইসরায়েলি সার্বভৌমত্ব মেনে নেবে না। বৃটেনও আলাদাভাবে ইসরায়েলি দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করেছে। একইসঙ্গে দেশটি, ইসরায়েলকে পশ্চিম তীরে বসতি স্থাপনের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার আহবান জানিয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ