বালাগঞ্জে সালিশ বৈঠকে খুনের ঘটনায় হতবাক গ্রামবাসী!

প্রকাশিত: ৬:৪৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২, ২০২০

হ্যালো বাংলাদেশ নিউজঃ

বালাগঞ্জে সালিশ বৈঠক চলাকালে প্রতিপক্ষের হাতে মো. আব্দুল্লাহ ওরফে সনজব উল্লাহ (৬০) নামে এক ব্যক্তি খুন হওয়ার সংবাদ পাওয়া গেছে। গত বুধবার (০১ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে। নিহত মো. আব্দুল্লাহ ওরফে সনজব উল্লাহ পশ্চিম গৌরীপুর ইউনিয়নের হরিশ্যাম গ্রামের বাসিন্দা। পরিবার এ ঘটনায় সনজব উল্লাহর প্রতিবেশী ও প্রতিপক্ষ একই গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আহমদ আলীসহ তার লোকজনকে দায়ী করেছেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম (ওসমানীনগর সার্কেল) গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এছাড়া বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) বাদ মাগরিব নিহত মো. আব্দুল্লাহ ওরফে সনজব উল্লাহর দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বালাগঞ্জ থানার অফিসার ইন-চার্জ গাজী আতাউর রহমান এ ব্যাপারে সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বালাগঞ্জ থানা পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মো. আব্দুল্লাহ ওরফে সনজব উল্লাহর ভাই ফয়জুল্লাহ গত কয়েকদিন আগে সাবেক ইউপি সদস্য আহমদ আলীর বোরো জমি রোপণ করে দেয়ার জন্য অগ্রিম ১হাজার টাকা গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে গত রোববার ধান রোপণ করতে গিয়ে জমিতে পানি বেশি থাকায় ফয়জুল্লাহ রোপণ করতে অস্বীকৃতি জানান। প্রয়োজনে টাকা ফেরত দেয়ার মত প্রকাশ করেন। এ নিয়ে হাওরেই দু’পক্ষের মারামারির ঘটনা ঘটে। এরপর বিষয়টি আপোষে নিষ্পত্তির জন্য একই গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী আব্দুন নূর উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তার মধ্যস্থতায় গত বুধবার (০১ জানুয়ারি) রাতে প্রবাসী আব্দুন নূরের বাড়িতে উভয়পক্ষের অংশগ্রহণে বৈঠক বসে। এর এক পর্যায়ে কথা কাটাকাটির জের ধরে মারামারির সূত্রপাত ঘটে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহত মো. আব্দুল্লাহ ওরফে সনজব উল্লাহর ভাতিজা বদরুল আলমসহ পরিবারের লোকজন অভিযোগ জানিয়েছেন, ঘটনার সময় প্রতিপক্ষ সাবেক মেম্বার আহমদ আলী ও তার ভাই আমরুশ আলী এবং ছেলে ইব্রাহিম আলীসহ অন্যরা মো. আব্দুল্লাহ ওরফে সনজব উল্লাহর ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় বদরুল আলমসহ অন্যদের বৈঠকস্থ (আব্দুন নূরের পাকাঘর) থেকে জোরপূর্বক বের করে দিয়ে গেইট বন্ধ করে মো. আব্দুল্লাহ ওরফে সনজব উল্লাহকে ঘরে আটকে রেখে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যা করে। পরবর্তীতে রাতেই ঘটনাস্থল থেকে মো. আব্দুল্লাহ ওরফে সনজব উল্লাহকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মো. আব্দুল্লাহ ওরফে সনজব উল্লাহর স্ত্রী কমরুন্নেছা ও একমাত্র ছেলে আমেরিকা প্রবাসী মো. তৌফিক আলম এ হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করেছেন। তাদের অভিযোগ ‘পরিকল্পিতভাবে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে’। তবে, এ বিষয়ে আলাপকালে স্থানীয় হরিশ্যাম গ্রামবাসীর মধ্যে চাপা ক্ষোভ লক্ষ্য করা গেছে। গ্রামের অনেকেই জানিয়েছেন, তারা হতবাক। তাদের একটাই দাবি, এ নৃশংস হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতরা যেন নিস্তার না পায়।

এদিকে নিহত মো. আব্দুল্লাহ ওরফে সনজব উল্লাহর ময়নাতদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) বাদ মাগরিব দাফন সম্পন্ন হয়েছে। জানাজায় স্থানীয় শত শত শোকাহত লোকজন অংশগ্রহণ করেন। এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ওসমানীনগর সার্কেল) সাইফুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পরিদর্শনকালে তিনি নিহতের পরিবারের সাথে কথা বলেন এবং এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেন।

বালাগঞ্জ থানার অফিসার ইন-চার্জ গাজী আতাউর রহমান বলেছেন, এ ঘটনায় অপরাধীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। নিহতের একমাত্র ছেলে মো. তৌফিক আলম যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ