সম্মানিত আলেম সমাজ, করোনা নিয়ে অতিকথন বন্ধ করুন

প্রকাশিত: ২:১২ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১৩, ২০২০

সম্মানিত আলেম সমাজ, করোনা নিয়ে অতিকথন বন্ধ করুন

আব্দুস সালাম আল মাদানী:

আসসালামু আলাইকুম
আমি কোন ব্লগার নই,একজন শিক্ষক মাত্র। করোনা নিয়ে বক্তা হুজুর হিসেবে পরিচিত বিখ্যাত কয়েকজনের বক্তব্য সম্বলিত একটি ভিডিও দেখে “আদ দ্বীনু আন নাছিহাহ” হিসেবে এ লিখা মাত্র।
★একজন বলেছেন,এটা কাফের,মুশরিক,নাসারা, ইয়াহুদি,খ্রিষ্টান,বৌদ্ধ,নাস্তিক ও উইঘুর মুসলমানদের নিপীড়নকারী,কুরআন বদলে দেওয়ার ধৃষ্টতা পোষনকারী চীনাদের জন্য আল্লাহর গজব।
★আরেকজন তরুন বক্তা বলেছেন,আল্লাহর কসম এটা ট্রাম্প,মোদী,পুতিনদের জন্য আল্লাহর গজব। ৫ ওয়াক্ত নামাজ আদায়কারী মুসলিমদের জন্য নয়।
★আরেকজন বলেছেন, মাস্ক ব্যবহার করবেন না। মাথায় টুপি পরে মুখ খোলা রেখে জিকির আজকার করুন, করোনা আপনার কিছু করতে পারবে না।
★আরেকজন বলেছেন, ক মানে কুরআন, র মানে রোযা, না মানে নামাজ অর্থাৎ কুরআন পড়া, নামাজ রোজা আদায়কারীর জন্য করোনা কোন হুমকি নয়।
★আরেকজন বলেছেন,চীনের প্রেসিডেন্ট নাকি টুপি মাথায় দিয়ে বেইজিংয়ের মসজিদে প্রবেশ করে মুসলমানদের কাছে ক্ষমা চেয়ে দোয়া চেয়েছেন। অচিরেই নাকি ১৩৫ কোটি চীনারা ইসলাম গ্রহণ করে ফেলবে।

★আরেকজন বলেছেন, তিন ক্বুল পড়ে শরীরে ফু দিলে করোনা আক্রমণ করবে না,ঔষধ লাগবে না।

★আরেকজন স্বপ্নের ব্যাখ্যা দিয়ে বলেছেন, বাংলাদেশে যেহেতু ইসলামের আলোচনা বেশী হয় তাই করোনা আক্রমণের সম্ভাবনা তেমন নেই। ইত্যাদি, ইত্যাদি।

সম্মানিত ওয়াইজে ক্বাওম, মহামারীর অতীতে এবং বর্তমানে কি শুধুই অমুসলিমদের ধ্বংস করেছে? মুসলমানরা কি আক্রান্ত হন নি? বাস্তবতা কি তাই বলে? খোদ ওমর (রাঃ) এর খেলাফত কালে সিরিয়ায় মহামারীতে সেনাপতি আবু উবাইদা (রাঃ) সহ শত শত সাহাবায়ে কেরাম কি শহিদ হন নি?

হারামাইন শরীফাইনের দরজা শুধু করোনার কারনে নয় বরং ইতিহাস সাক্ষী মহামারী ও রাজনৈতিক কারনে বহুবার হজ্জ পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে। ১৮৫২ সালে প্লেগে আক্রান্ত হয়ে এক চতুর্থাংশ হাজী মক্কা শরীফে ইন্তেকাল করেছেন।

বাস্তবতা কি প্রমাণ করে না যে ২১০ টি দেশের মানুষ আজ মুসলিম অমুসলিম নির্বিশেষে করোনার ছোবলে ক্ষত বিক্ষত? মসজিদ থেকে,তাবলীগ থেকে, সভা সমাবেশ স্থল থেকে এ ছোঁয়াচে ভাইরাসটি কি ছড়ায় নি?

দোয়া দুরুদ পড়লে,৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়লে করোনা কাছেও আসবে না আপনাদের এ কথিত দাবিটি কি সত্য প্রমাণিত হয়েছে? এটা কি শরীয়ত সম্মত কথা যে কোন বৈষয়িক প্রতিরোধ প্রতিরক্ষার প্রয়োজন নেই? তাহলে মসজিদের ইমাম,তাবলীগের মুসল্লি, নিষ্ঠাবান মুসলমানরা কি করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছেন না?
আল্লাহর ওয়াস্তে অতিকথন বন্ধ করুন। আমাদের সর্বাধুনিক ধর্ম আল ইসলামকে অবিশ্বাসীদের কাছে হাস্যস্পদ করে তুলবেন না। মহান মাবুদের কাছে তাওবাহ ইস্তেগফার করে সরকার ও চিকিৎসা বিজ্ঞানের নিয়মাবলি মেনে চলুন,অপরকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে সতর্ক করুন। আল্লাহর কালাম – “ওয়ালা তাক্বফু মা লাইছা লাকা বিহী ইলম” মেনে চলুন,আমীন।