সোলাইমানিকে হত্যায় কঠিন অবস্থায় পড়েছে আফগানিস্তান

প্রকাশিত: ১০:১৫ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৬, ২০২০

সোলাইমানিকে হত্যায় কঠিন অবস্থায় পড়েছে আফগানিস্তান

হ্যালো বাংলাদেশ নিউজঃ

যুক্তরাষ্ট্রের হাতে শীর্ষ ইরানি কমান্ডার নিহত হওয়ার ফলে তেহরান ও ওয়াশিংটনের মধ্য নিরপেক্ষপতা বজায় রাখার ব্যাপারে প্রতিবেশী আফগানিস্তান কঠিন অবস্থায় পড়ে গেছে।

ইরানি রেভ্যুলশনারি গার্ডস কোর (আইআরজিসি) কুদস বাহিনীর কমান্ডার কাসেম সোলাইমানির ইরাকি রাজধানী বাগদাদে এক মার্কিন হামলায় নিহত হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর আফগান সরকার সতর্কভাবে তৈরি একটি বিবৃতি প্রকাশ করে প্রতিবেশী হিসেবে তেহরানের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখা ও কৌশলগত অংশীদার হিসেবে ওয়াশিংটনের সাথে কাজ চালিয়ে নেয়ার সম্পর্ক অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেয়।

পেন্টাগন যদিও সোলাইমানি ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে শত শত আমেরিকান ও জোট বাহিনীর সদস্যকে হতাহত করার কিন্তু ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেইনি শহিদি রক্তে যার ও যাদের হাত রঞ্জিত হয়েছে, ওই অপরাধীদের জন্য ভয়াবহ প্রতিশোধ অপেক্ষা করছে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন।

কাবুলের সতর্কভাবে শব্দ বাছাই

গভীর ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক সম্পর্ক ছাড়াও ইরান ও আফগানিস্তানের মধ্যে রয়েছে দীর্ঘ ৯২০.৫ কিলোমিটার (৫৭২ মাইল) সীমান্ত।

এই অঞ্চলে উত্তেজনা বৃদ্ধি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি বিবৃতিতে বলেন যে আফগানিস্তান ঘনিষ্ঠভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে এবং বিশ্বের সব দেশের সাথে ভালো দ্বিপক্ষীয় ও বহুপক্ষীয় সম্পর্ক বজায় রাখতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। বিবৃতিতে বলা হয়, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী পম্পেইওর সাথে টেলিফোন সংলাপে প্রেসিডেন্ট ঘানি তৃতীয় কোনো দেশের বিরুদ্ধে হামলা চালাতে বা অন্য কোনো আঞ্চলিক সঙ্ঘাতে আফগান মাটি ব্যবহার না করার ওপর জোর দিয়েছেন।

ঘানির ক্ষমতার অংশীদার প্রধান নির্বাহী আবদুল্লাহ আবদুল্লাহও ইরানি জেনারেলের নিহত হওয়ার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে বলেছেন, সন্ত্রাসবাদ ও সহিংসতার শিকার হিসেবে আফগানিস্তান আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্কে উত্তেজনা প্রশমনের আহ্বান জানায়, এবং আশা করে যে সম্প্রতিক ঘটনাবলী আমাদের বন্ধুদের ও মিত্রদের সহযোগিতা ও পরিস্থিতির ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না।

জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের মুখপাত্র জাভিদ ফয়সাল আনাদুলু এজেন্সিকে বলেন, নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ আফগানিস্তান। আমরা আমাদের সম্মানিত নাগরিক ও আমাদের সব প্রতিবেশীকে আশ্বস্ত করতে চাই যে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে আমাদের দ্বিপক্ষীয় নিরাপত্তা সমঝোতা অনুযায়ী আফগানিস্তানের মাটি কোনো অবস্থাতেই অন্য কোনো দেশের বিরুদ্ধে ব্যবহৃত হতে দেয়া হবে না।

ফাতেমিয়ুন ডিভিশন

নিহত ইরানি জেনারেল সিরিয়া সঙ্ঘাতে সরকারি বাহিনীর পাশাপাশি যুদ্ধ করার জন্য ইরানে যাওয়া আফগান শিয়া অভিবাসীদের নিয়ে আইপিজিসির ফাতেমিয়ুন ডিভিশন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

সাবেক গুরুত্বপূর্ণ তালেবানবিরোধী নর্দার্ন অ্যালায়েন্স কমান্ডার ও রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অনেকেই দায়েশ/আইএসআইএস ও চরমপন্থীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য সোলাইমানিকে ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে অভিহিত করেছেন।

জাতিগত শিয়া-হাজারা রাজনীতিবিদ ও আফগানিস্তানের উপ প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোহাকিক নিন্দা করেছেন সোলাইমানির হত্যাকাণ্ডের।

সাবেক আফগান প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাইও হত্যাকাণ্ডকে আন্তর্জাতিক রীতিনীতির বরখেলাপ বলে অভিহিত করেছেন।

এ ব্যাপারে তালেবানের প্রতিক্রিয়া এখন পর্যন্ত জানা যায়নি। তালেবান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে নতুন করে শান্তি আলোচনার মধ্যেই এই হত্যাকাণ্ড ঘটল।

আফগানিস্তানে বর্তমানে প্রায় ১৪ হাজার মার্কিন সৈন্য রয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

faster