স্পেনে রমজান কেমন কাটাচ্ছেন প্রবাসীরা

প্রকাশিত: ৭:৪৬ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৫, ২০২০

স্পেনে রমজান কেমন কাটাচ্ছেন প্রবাসীরা

আব্দুল কাদির আল মাহদি:




করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে প্রায় সারা বিশ্বে লকডাউন চলছে। অনেক দেশের মসজিদগুলো বন্ধ। কজেই এবারের রমজান নেই বরাবরের মতো আমেজ। হচ্ছে না মসজিদ ভিত্তিক তারাবিহ সহ পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ। সারা বিশ্বের ন্যায় স্পেনের বেশির ভাগ মসজিদ পুরাপুরি বন্ধ রেখেই রামজান শুরু করছে স্পেনের মুসলমানরা। এমন কি অনেক মসজিদে কোন নামাজ বা আজানই হচ্ছে না। আবার কোন কোন মসজিদে শুধু ইমাম ও খাদেমরা একা একা নামাজ জারী রাখছে।
স্পেনে ১৩ মার্চ থেকে লকডাউন শুরু হয়েছিল। এর পর থেকে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন ভিবিন্ন মসজিদে মসজিদে গিয়ে মসজিদ বন্ধ রাখতে অনুরোধ করছে। এমনকি তারা বলছে মসজিদের মতো অন্য ধর্মাবলম্বীদের উপসনালয় একই নিয়মে বন্ধ রাখা হয়েছে। তাদের পক্ষ থেকে পরবর্তি নোটিস না আসা পর্যন্ত মসজিদ,গির্জা সহ অন্যান্য উপাসনালয় খুলতে মানা করা হয়েছে।
এ হিসেবে এবারের রমজানে স্পেনের অধিকাংশ মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ সহ কোন তারাবিহর জামাত হচ্ছে না। স্পেন সরকার ও মুসলিম কমিশন মুসলামনদের নিজ নিজ ঘরে নামাজ পড়তে নির্দেশ দিয়েছে।
স্পেনের ভিবিন্ন প্রদেশে ১০/১২ টি বাংলাদেশী মসজিদ আছে। জানা মতে রমজানে কোন মসজিদেই জামাত বা তারাবিহ হচ্ছে না।
ভিবিন্ন বসা বাড়িতে আশপাশের কয়েক বাসার লোক একত্রে জমা হয়ে কোথাও কোথাও জামাতে তারাবিহ আদায় করছেন। লকডাউনের পর থেকেই ভিবিন্ন ঘরে এভাবে জুম্মা সাহ পাঁচ ওয়াক্তি নামাজ মুসলমানরা আদায় করে যাচ্ছেন।

লকডাউনের পর ভালো একটি দিক হচ্ছে, নিজের ঘরের বেলকনি বা দরজার সামনে ওপেন আজান দেয়ার ব্যাপারে কিছু ছাড় দেয়া হয়েছে। যেটা আগে ছিল না। তবে এই অপেন আজান কোন মসজিদ বা ইসলামিক সেন্টারে দেয়া যাচ্ছে না।
আগামি ১০ মে স্পেনে লকডাউন তুলে দেয়া হতে পারে। সে সময় মসজিদ বা ইসলামিক সেন্টারগুলো পুরাপুরি ওপেন নাও হতে পরে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এসব খোলতে আরও দির্ঘ সময় লাগতে পারে। কারন হচ্ছে, ইউরোপের কিছু দেশে যেমন জার্মান, অস্ট্রিয়া ইতিমধ্যে লকডাউন খোলা হলেও মসজিদ, গির্জা আগামি গ্রীষ্মকালীন ছুটি পর্যন্ত বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। কেউ কেউ আশঙ্কা করছেন মসজিদ,গির্জা বন্ধের নোটিস আগামি ২১ সাল পর্যন্তও চলতে পারে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

faster