হিংসা একটি অপছন্দনীয় গুণ, হিংসার ক্ষতি ও তা থেকে বাঁচার উপায়

আব্দুল কাদির আল মাহদি
বার্সেলোনা, স্পেন থেকে

আল্লাহ তা’আলা আমাদের মাঝে তাঁর কোন কোন বান্দাকে বিশেষ বিশেষ কিছু দিয়ে ধন্য করেছেন। যেমন- সম্পদ, ইজ্জত, সুন্দর্য, ক্ষমতা ইত্যাদি।
এ নেয়ামত সমুহের শোকর আদায় করা দরকার। এখানে একটি বিষয় অত্যান্ত গর্হিত ও নিন্দনীয়, যেবিষয় থেকে আল্লাহ তা’আলা সতর্ক করেছেন। এ বিষয় থেকে আমাদের অন্তরকে পরিস্কার করা প্রয়োজন।

বিষয়টির আরবি পরিভাষা হচ্ছে (الحسد) তথা হিংসা। যেটি অনেক মন্দ কাজ। হিংসা গুণ থেকে রাসুল (সা) সতর্কবানী শুনিয়েছেন। তিনি (সা) বলেন-
لا تَحاسدُوا، وَلا تناجشُوا، وَلا تَباغَضُوا، وَلا تَدابرُوا، وَلايبِ
بعْضُكُمْ عَلَى بيْعِ بعْضٍ، وكُونُوا عِبادَ اللَّه إِخْوانًا
তোমরা পরস্পরকে হিংসা করবে না, একে অপরের সাথে শত্রুতা পোষণ করবে না, সুপ্তদোষ সন্ধান করবে না, গুপ্ত ভুল-ভ্রান্তি অনুসন্ধান করো না এবং পরস্পরকে ধোঁকায় ফেলবে না। আর তোমরা আল্লাহর বান্দা হিসেবে ভ্রাতৃ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে থাকো। (সহিহ মুসলিম)

যুবায়ের ইবনে আওয়াম (রা) হতে বর্ণিত হাদিস-
عَنِ ابْنِ الزُّبَيْرِ ، أَنّ رَسُولَ اللهِ صلى الله عليه وسلم قَالَ :
دَبَّ إِلَيْكُمْ دَاءُ الأُمَمِ قَبْلَكُمُ الْبَغْضَاءُ وَالْحَسَدُ ، وَالْبَغْضَاءُ وَهِيَ الْحَالِقَةُ ، لَيْسَ حَالِقَةَ الشَّعْرِ لَكِنْ حَالِقَةَ الدِّينِ
রাসুল (সা) বলেছেনঃ তোমাদের আগেকার উম্মাতদের রোগ তোমাদের মধ্যেও সংক্রমিত হয়েছে। তা হলো পরস্পর ঘৃণা ও হিংসা-বিদ্বেষ। আর এই রোগ মুন্ডন করে দেয়। আমি বলছি না যে, চুল মুন্ডন করে দেয়, বরং এটা দ্বীনকে মুন্ডন (বিনাশ) করে দেয়। (-তিরমিজি)

****হিংসা প্রধানত যাদের স্বভাব-
হিংসা হচ্ছে এমন মন্দ কাজ বা মন্দ স্বভাব, যে স্বভাব ইবলিসের নিকট ছিল। ইবলিস আদম (আ) এর স্থান ফেরেশতাদের উপরে দেখে হিংসা শুরু করল। সে দেখল, ফেরেশতারা আদম (আ) কে সিজদাহ করছেন। আল্লাহ তা’আলা আদম (আ) কে সব কিছুর নাম শিখিয়ে দিয়েছেন। তাকে জান্নাতে বসবাসের স্থান করে দিয়েছেন। হিংসার বশবর্তী হয়ে ইবলিস শয়তান আদম (আ) কে জান্নাত থেকে বাহির করার চেষ্টা বাকি রাখেনি। এমনকি সর্বশেষ বাহির করে সফলও হয়েছে।

হিংসা হচ্ছে জালেমদের অন্যতম স্বভাব। এই হিংসার কারণে আদম সন্তান তাঁর আপন ভাইকে (কাবিল হাবিলকে) অন্যায় ভাবে হত্যা করতে দ্বিধাবোধ করেনি। কারণ আল্লাহ তা’আলা হাবিলকে নেয়ামত দিয়েছিলেন। তাঁর কোরবানী কবুল করে নিয়েছিলেন। আল্লাহ তা’আলা উক্ত ঘটনা কোরআনে বর্ণনা করেছেন। আমাদেরকে হিংসা থেকে হুঁশিয়ার করার জন্য এবং হিংসার পরিনাম বর্ণনা করার জন্য। আল্লাহ তা’আলা বলেন-
وَاتْلُ عَلَيْهِمْ نَبَأَ ابْنَيْ آدَمَ بِالْحَقِّ إِذْ قَرَّبَا قُرْبَانًا فَتُقُبِّلَ مِنْ أَحَدِهِمَا وَلَمْ يُتَقَبَّلْ مِنَ الْآخَرِ قَالَ لَأَقْتُلَنَّكَ ۖ قَالَ إِنَّمَا يَتَقَبَّلُ اللَّهُ مِنَ الْمُتَّقِينَ
لَئِنْ بَسَطْتَ إِلَيَّ يَدَكَ لِتَقْتُلَنِي مَا أَنَا بِبَاسِطٍ يَدِيَ إِلَيْكَ لِأَقْتُلَكَ ۖ إِنِّي أَخَافُ اللَّهَ رَبَّ الْعَالَمِينَ
إِنِّي أُرِيدُ أَنْ تَبُوءَ بِإِثْمِي وَإِثْمِكَ فَتَكُونَ مِنْ أَصْحَابِ النَّارِ ۚ وَذَٰلِكَ جَزَاءُ الظَّالِمِينَ
فَطَوَّعَتْ لَهُ نَفْسُهُ قَتْلَ أَخِيهِ فَقَتَلَهُ فَأَصْبَحَ مِنَ الْخَاسِرِينَ

আপনি তাদেরকে আদমের দুই পুত্রের বাস্তব অবস্থা পাঠ করে শুনান। যখন তারা ভয়েই কিছু উৎসর্গ নিবেদন করেছিল, তখন তাদের একজনের উৎসর্গ গৃহীত হয়েছিল এবং অপরজনের গৃহীত হয়নি। সে বললঃ আমি অবশ্যই তোমাকে হত্যা করব। সে বললঃ আল্লাহ ধর্মভীরুদের পক্ষ থেকেই তো গ্রহণ করেন।
যদি তুমি আমাকে হত্যা করতে আমার দিকে হস্ত প্রসারিত কর, তবে আমি তোমাকে হত্যা করতে তোমার দিকে হস্ত প্রসারিত করব না। কেননা, আমি বিশ্বজগতের পালনকর্তা আল্লাহকে ভয় করি।
আমি চাই যে, আমার পাপ ও তোমার পাপ তুমি নিজের মাথায় চাপিয়ে নাও। অতঃপর তুমি দোযখীদের অন্তর্ভূক্ত হয়ে যাও। এটাই অত্যাচারীদের শাস্তি।
অতঃপর তার অন্তর তাকে ভ্রাতৃহত্যায় উদুদ্ধ করল। অনন্তর সে তাকে হত্যা করল। ফলে সে ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে গেল। (আল কোরআন ৫/২৭-৩০)

হিংসা হচ্ছে ইয়াহুদীবাদের গর্হিত গুণ বা স্বভাব। তারা আমাদের নবী (সা) এর উপর হিংসা করত। কারণ রাসুল (সা) কে আল্লাহ তা’আলা নবুওয়াতি দিয়ে ছিলেন। অনেক উঁচু মার্যাদাবান বানিয়ে ছিলেন। তিনি (সা) আল্লাহ তা’আলার পক্ষ থেকে প্রেরিত নবী, এমন সত্য জানার পরও হিংসা করত। এমনকি উম্মতে মুহাম্মদীর উপর হিংসা করত। কারণ আল্লাহ তা’আলা তাদেরকে ঈমান ও হেদায়ত দিয়ে ধন্য করেছেন। আল্লাহ তা’আলা তাদের কথা কোরআনে উল্লেখ করে বলেন-
‎وَدَّ كَثِيرٌ مِنْ أَهْلِ الْكِتَابِ لَوْ يَرُدُّونَكُمْ مِنْ بَعْدِ إِيمَانِكُمْ كُفَّارًا حَسَدًا مِنْ عِنْدِ أَنْفُسِهِمْ مِنْ بَعْدِ مَا تَبَيَّنَ لَهُمُ الْحَقُّ ۖ فَاعْفُوا وَاصْفَحُوا حَتَّىٰ يَأْتِيَ اللَّهُ بِأَمْرِهِ ۗ إِنَّ اللَّهَ عَلَىٰ كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ

আহলে কিতাবদের অনেকেই প্রতিহিংসাবশতঃ চায় যে, মুসলমান হওয়ার পর তোমাদেরকে কোন রকমে কাফের বানিয়ে দেয়। তাদের কাছে সত্য প্রকাশিত হওয়ার পর (তারা এটা চায়)। যাক তোমরা আল্লাহর নির্দেশ আসা পর্যন্ত তাদের ক্ষমা কর এবং উপেক্ষা কর। নিশ্চয় আল্লাহ সব কিছুর উপর ক্ষমতাবান। (আল কোরআন ২/১০৯)

***হাসদ বা হিংসা কী?
সংক্ষেপে হিংসা হচ্ছে অন্যের কাছে পৌঁছা নেয়ামতের প্রতি ঘৃণ্য মনোভাব, তাথে নেয়ামত ধ্বংস হওয়ার ইচ্ছা থাকুক বা নাই থাকুক। এই গুণের বহু ক্ষতির সাইড আছে যার সংখ্যা অনেক।

***হিংসার কিছু অশুভ পরিণাম-
১. আল্লাহ তা’আলার সিদ্ধান্তের উপর অসন্তুষ্ট থাকা, এবং তাঁর সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বান্দাদের ভিতর শ্রেণিবিন্যাসের ইন্ডাইরেক্ট অভিযোগ।
২. হিংসুক তার চিন্তা চেতনায় আল্লাহ তা’আলার হেকমতকে অপছন্দ করে।
৩. হিংসা মানুষকে ঝগড়া ফাসাদের দিকে নিয়ে যায়। কেননা যাকে নেয়ামত দেয়া হয়েছে, হিংসুক তার উপর অসন্তুষ্ট থাকে। অথচ এটা মুমিনদের ভিতর ভ্রাতিত্ব সৃষ্টি হওয়ার বিপরিত বিষয়।

৪. হিংসুক চায় কোনভাবে নেয়ামতপ্রাপ্ত ব্যক্তির থেকে নেয়ামত বিলিন হয়ে যাক, যদি হত্যা করেও হয়। কোরআনের সুরা মায়েদার কাবিল,হাবিলের উল্লেখিত ঘটনা থেকে বুঝা গেল।
৫.হিংসা সত্যকে গ্রহণ করতে হিংসুকে বাধাগ্রস্ত করে। এবং ক্রমাগতভাবে মিথ্যার উপর দিয়ে চলতেই থাকে, যেটা তার ধ্বংসের কারণ হয়।
৬. হিংসুক হিংসার বশবর্তী হয়ে গিবত, শেকায়তে লিপ্ত হয়ে যায়। আর গিবত, শেকায়ত হচ্ছে আরও নিন্দনীয় দুটি বিষয়। এবং কবিরা গুনাহ হতে অন্যতম গুনাহ।

৭. হিংসার কারণে মানুষের আমল নষ্ট হয়ে যায় যেভাবে হাদিসে বর্ণিত আছে। রাসুল (সা) বলেন-
‎إِيَّاكُمْ وَالْحَسَدَ فَإِنَّ الْحَسَدَ يَأْكُلُ الْحَسَنَاتِ كَمَا تَأْكُلُ النَّارُ الْحَطَبَ
তুমরা হিংসা থেকে বাঁচো! কেননা, হিংসা মানুষের নেক আমাল এমন ভাবে নষ্ট করে যেমন আগুন লাকড়িকে নষ্ট করে দেয়ে। (আবুদাউদ)
৮. হিংসার কারনে মানুষের স্থায়ি পেরেশানি লেগে থাকে। মুআবিয়া (রা) বলেন-
‎قال معاوية رضي الله عنه: ليس من خصال الشر أعدل من الحسد؛ لأنه يقتل الحاسد قبل أن يصل إلى المحسود
হিংসার মত মন্দ গুণ আর নেই। কেননা, এটা হিংসুককে হিংসায় নিপতিত ব্যক্তির আগেই ধ্বংস করে দেয়ে।

***হিংসা থেকে বিরত থাকার ফল-
হিংসা থেকে বিরত থাকা মানে হচ্ছে জাহান্নামের আগুন থেকে বিরত থাকলেন। জান্নাতে যাওয়ার সুযোগ পেলেন। কেননা, ইহা দিলকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। আর আল্লাহ তা’আলা সুস্থ অন্তরের কথা ঘোষণা করে বলেন-
‎يَوْمَ لَا يَنْفَعُ مَالٌ وَلَا بَنُونَ. إِلَّا مَنْ أَتَى اللَّهَ بِقَلْبٍ سَلِيمٍ
যে দিবসে ধন-সম্পদ ও সন্তান সন্ততি কোন উপকারে আসবে না। কিন্তু যে সুস্থ অন্তর নিয়ে আল্লাহর কাছে আসবে। (আল কোরআন ২৬/৮৮,৮৯)

সেই সাহাবির ঘটনা, হিংসা মুক্ত দিল তাকে দুনিয়াতে জান্নাতের সুসংবাদ পেতে সাহায্য করেছে। একজন সাহাবি রাসুল (সা) এর দরবারে হাজির হতে রাসুল (সা) ঘোষণা করলেন- “এখন যে প্রবেশ করবে সে জান্নাতি”। একাধারে তিন দিন এভাবে বলার পর আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা) উৎকন্ঠা মন নিয়ে তাঁর বাড়িতে মেহমান হয়ে রাত্রিযাপন করলেন। কিন্তু, কোন স্পেশাল আমাল দেখতে পেলেন না। পরে সেই সাহাবিকে সরাসরি জিজ্ঞাসা করলেন- তিন তিন দিন জান্নাতে যাওয়ার সুসংবাদ পাওয়া আমল কী? উক্ত সাহাবি জাবাবে বলেন-
‎وإني أبيت إذ أبيت، وليس في قلبي غش لأحد من المسلمين، ولا أحسد أحدًا على نعمة آتاه الله تعالى إياها

আমি যখন রাত্রিযাপন করতে যাই, তখন কোন মুসলমানের জন্য অন্তরে কোন খারাপি নিয়ে শুইতে যাই না। আর কারও উপর আল্লাহ তা’আলার দেয়া নিয়ামতের প্রতি হিংসা করি না।

***হিংসা থেকে বেঁচে থাকার ভিবিন্ন উপায় সমূহ-
১.সর্বদা আল্লাহ তা’আলার ধ্যানে মগ্ন থাকা। এবং শরী’য়তের বিধি নিষেধগুলো যেভাবে হুকুম করা হয়েছে পালন করা আর যা থেকে বারণ করা হয়েছে বিরত থাকা।

২. আল্লাহর সিদ্ধান্তে সন্তুষ্ট থাকা। এ কথা বিশ্বাস করা সবকিছু আল্লাহ তা’আলার সিদ্ধান্তের উপর দন্ডয়মান।

৩. দুনিয়ার ব্যপারে আত্মসংযমব্রত হওয়া। আখেরাতের তুলনায় দুনিয়া তুচ্ছ এ কথা মনে রাখা। হাদিসে দুনিয়ার ব্যপারে বলা হচ্ছে-
‎عن ابي هُرَيْرَةَ يَقُولُ: سَمِعْتُ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقُولُ أَلَا إِنَّ الدُّنْيَا مَلْعُونَةٌ مَلْعُونٌ مَا فِيهَا إِلَّا ذِكْرُ اللَّهِ
আবু হুরায়রা (রা) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা)-কে বলতে শুনেছি : দুনিয়া ও তার মাঝের সকলকিছুই অভিশপ্ত, কিন্তু আল্লাহ্‌ তা’আলার যিকির ভিন্ন। (তিরমিজি)

হিংসা মনের ভিতর উদ্রেক হলে একথা স্বরন করা যে আল্লাহ তা’আলার নিকট এই নশ্বর দুনিয়ার গুরুত্ব একটা মাছির ডানা পরিমানও নেই।

৪. মৃত্যু ও আখেরাতের জীবনের বেশি বেশি স্বরন করা হচ্ছে হিংসা থেকে বাঁচার অন্যতম উপায়। কারণ মানুষ জীবন শেষে শুধু গায়ের কাফন ও নিজের কৃত আমল ছাড়া আর কিছুই নিয়ে যাবে না। কাজেই দুনিয়ার এই চাকচিক্যের গুরুত্ব না দিয়ে আখেরাতের গুরুত্ব দেয়া।

৫. হিংসা থেকে বাঁচার আরেক উপায় হচ্ছে হিংসার পরিনামের ব্যপারে চিন্তা করা। এর দ্বারা আল্লাহ তা’আলা রাগান্বিত হন।

৬. হিংসা থেকে বাঁচার একটি সুন্দর পদ্ধতি রাসুল (সা) হাদিসে বাতিয়ে দিয়েছেন। সেটি হচ্ছে আমার চেয়ে নিচের স্তরের মানুষের দিকে তাকানো। আবু হুরায়রা (রা) থেকে সহিহ মুসলিমে হাদিস বর্ণিত। রাসুল (সা) বলেন-
‎انْظُرُوا إِلَى مَنْ هُوَ أَسْفَلَ مِنْكُمْ, وَلَا تَنْظُرُوا إِلَى مَنْ هُوَ فَوْقَكُمْ,
‎فَهُوَ أَجْدَرُ أَنْ لَا تَزْدَرُوا نِعْمَةَ اللَّهِ عَلَيْكُمْ

তোমাদের চেয়ে নিম্নস্তরের লোকদের প্রতি দৃষ্টি দাও। তোমাদের চেয়ে উঁচু স্তরের লোকেদের দিকে লক্ষ্য করো না। কেননা আল্লাহর নি‘আমাতকে তুচ্ছ না ভাবার এটাই উত্তম পন্থা। (সহিহ মুসলিম)

আল্লাহ তা’আলা যেন আমাদেরকে হিংসা করা ও হিংসায় পতিত হওয়া থেকে হেফাজত করেন। আমিন

দারুল কোরআন ইসলামিক সেন্টার বার্সেলোনা স্পেনে দেয়া আব্দুল কাদির আল মাহদি প্রদত্ত জুম্মার খুতবা।

Recent Posts

  • গ্রাম -বাংলা

বালাগঞ্জের মুসলিমাবাদে বাজারের নামকরণ নিয়ে দু’পক্ষে সংঘর্ষ, আহত ৪

আমির আলী: বালাগঞ্জ উপজেলার পূর্ব গৌরীপুর ইউনিয়নের মুসলিমাবাদে একটি বাজারের নামকরণ নিয়ে দীর্ঘ কয়েক বছর…

4 days ago
  • আর্ন্তজাতিক

স্কটল্যান্ডে এক বাংলাদেশির ছুরিকাঘাতে আরেক বাংলাদেশি নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাজ্যে স্বদেশী সহকর্মীর ছুরিকাঘাতে নিহত হয়ে‌ছেন এক বাংলা‌দেশি। স্কটল্যান্ডে নিহত রেস্টুরেন্ট কর্মীর নাম…

7 days ago
  • শোক সংবাদ

বালাগঞ্জ বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক হাজীগেদাই মিয়ার ৫ম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে শোক সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

বালাগঞ্জ প্রতিনিধিঃ বালাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক আহবায়ক মরহুম হাজী মোঃ গেদাই মিয়ার ৫ম মৃত্যু বার্ষিকী…

7 days ago
  • সাহিত্য ও কবিতা

লর্ড কর্ণওয়ালিশ ও লর্ড রিপন: জমিদার প্রথার উদ্ভব ও বিলোপ

মুহাম্মদ শামসুল ইসলাম: ইস্টইন্ডিয়া কোম্পানী যে ভারতীয় উপমহাদেশে এসেছিল এবং তাদের প্রাথমিক ইন্টারভেশন সেটির প্রকৃতি…

1 week ago
  • ইসলামিক
  • প্রবাসের খবর

বার্সেলোনা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের বিশুদ্ধভাবে কুরআন শিক্ষার কোর্সের পুরস্কার বিতরনী অনুষ্টান অনুষ্টিত

নিজস্ব প্রতিবেদকঃস্পেনের পর্যটন নগরী বার্সেলোনার Calle LLuna -11 বাংলাদেশী কমিউনিটি পরিচালনাধীন ক্রয়কৃত বার্সেলোনা কেন্দ্রীয় জামে…

2 weeks ago
  • প্রবাসের খবর
  • রাজনীতি

যুক্তরাজ্যে এবি পার্টির আহবায়ক কমিটি গঠন

নিউজ ডেস্কঃআমার বাংলাদেশ পার্টি যুক্তরাজ্য শাখার আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। গত ৬ আগস্ট সোমবার…

2 weeks ago

This website uses cookies.