fbpx

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন স্থগিত করেছে জার্মানি,স্পেন, ফ্রান্স ও ইতালি

প্রকাশিত: ৩:২০ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৬, ২০২১

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন  স্থগিত করেছে জার্মানি,স্পেন, ফ্রান্স ও ইতালি

নিউজ ডেস্কঃইউরোপে রক্তে জমাট বাঁধার একাধিক ঘটনার পর অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনা ভ্যাকসিনের প্রয়োগ স্থগিত করেছে জার্মানি,স্পেন, ফ্রান্স ও ইতালি। সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে বেশ কয়েকটি ছোট ইউরোপীয় দেশ টিকাটির প্রয়োগ স্থগিত করার পর চারটি বড় দেশও একই পথে হাঁটলো। রয়টার্স,আলজাজিরা।

Advertisements

সোমবার জার্মানির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, দেশটির ভ্যাকসিন কর্তৃপক্ষ পল এনলিখ ইন্সটিটিউটের (পিইআই) সুপারিশের ভিত্তিতে অবিলম্বে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিন প্রয়োগ স্থগিত করা হয়েছে। জার্মান মন্ত্রণালয় জানায়, জার্মানি ও ইউরোপে ভ্যাকসিন নেওয়ার পর রক্তে জমাট বাঁধার ঘটনায় পিইআই অধিকতর তদন্ত প্রয়োজন বলে মনে করছে।

জার্মানির এমন ঘোষণার কিছুক্ষণের মধ্যেই ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ভ্যাকসিনটির প্রয়োগ স্থগিতের ঘোষণা দেন। তিনি জানান, মঙ্গলবার দুপুরে ইউরোপিয়ান মেডিসিন্স এজেন্সি (ইএমএ)-এর নতুন পরামর্শ পাওয়ার আগ পর্যন্ত এই স্থগিতাদেশ বহাল থাকবে। ইতালিও কয়েকটি নির্দিষ্ট ব্যাচের ভ্যাকসিন ডোজের প্রয়োগ স্থগিতের মেয়াদ বাড়িয়েছে। তারাও ইএমএ’র সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছে।

সোমবার স্পেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোলিনা দেরিয়াস সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে ২ সপ্তাহের জন্য দেশটিতে টিকা প্রয়োগ স্থগিত ঘোষণা করেন। তিনি জানান, ইউরোপিয়ান মেডিসিন্স এজেন্সি (ইএমএ) থেকে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা আসার আগে এ সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে।

একদিন আগে নেদারল্যান্ডসও এমন পদক্ষেপ নিয়েছিল। ২৯ মার্চ পর্যন্ত ভ্যাকসিন প্রয়োগ স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেয় ডাচ সরকার। আয়ারল্যান্ড, ডেনমার্ক, নরওয়ে, বুলগেরিয়া ও আইসল্যান্ডও ভ্যাকসিনটির প্রয়োগ স্থগিত করেছে। ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব কঙ্গো ও ইন্দোশিয়া ভ্যাকসিন কর্মসূচি শুরু করাই স্থগিত করেছে। ইতালি ও অস্ট্রিয়াসহ বেশ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশ ভ্যাকসিনটির নির্দিষ্ট ব্যাচের প্রয়োগ বাতিল করেছে।

থাইল্যান্ড ঘোষণা দিয়েছে, মঙ্গলবার থেকে ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হবে। নিরাপত্তা উদ্বেগে ভ্যাকসিন শুরু স্বল্প সময়ের জন্য বিলম্বিত করার পর এই ঘোষণা দেওয়া হয়।

সোমবার ডব্লিউএইচও মুখপাত্র ক্রিস্টিয়ান লিন্ডেমেইয়ার জানান, সংস্থার পক্ষ থেকে ভ্যাকসিন নেওয়ার পর রক্তে জমাট বাঁধার বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তিনি বলেন, যখনই বিষয়টি সম্পর্কে বিস্তারিত সম্পর্কে জানতে পারবে, বর্তমান সুপারিশমালায় যদি কোনও পরিবর্তন ঘটে এবং প্রাপ্ত তথ্য দ্রুততার সঙ্গে জনগণকে জানানো হবে।

তিনি আরও বলেন, আজ (সোমবার) পর্যন্ত এসব ঘটনা ভ্যাকসিন নেওয়ার কারণেই ঘটেছে বলে কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। গুরুত্বপূর্ণ হলো ভ্যাকসিন প্রয়োগ জারি রাখা যাতে করে প্রাণঘাতী ভাইরাসের আক্রমণ থেকে জীবন রক্ষা করা যায়।

অ্যাস্ট্রাজেনেকা জানিয়েছে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাজ্যে এক কোটি ৭০ লাখেরও বেশি মানুষকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেওয়া হয়েছে। তাদের বিষয়ে সতর্ক পর্যালোচনায় দেখা গেছে, শিরায় রক্ত জমাট বাঁধা বা অন্য কোনও ঝুঁকির মুখে তারা পড়েননি। বয়স, লিঙ্গ বা টিকার ব্যাচের ভিত্তিতে কিংবা নির্দিষ্ট কোনও দেশেও ভ্যাকসিন গ্রহণের ফলে এ ধরনের কোনও ঝুঁকি তৈরি হওয়ার প্রমাণ মেলেনি।

Advertisements