ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে নিউজ করায় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে জিডি ও হুমকির অভিযোগ

প্রকাশিত: ১১:২৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৬, ২০২১

নিউজ ডেস্ক:
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের পদ প্রত্যাশী নেতা ফয়সাল সিদ্দিকি আরাফাতের বিরুদ্ধে করা নিউজ শেয়ার করায় স্থানীয় পত্রিকার এক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরী করেছে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্সের তৌফিকুর রহমান তুষার নামের এক শিক্ষার্থী । রবিবার (২৬ ডিসেম্বর) দুপুর ১২ টার দিকে ওই শিক্ষার্থী বাদী হয়ে ইবি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করে। এদিকে নিউজ শেয়ার করে অপপ্রচারের অভিযোগ এনে ওই সাংবাদিকের শশুরকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আরাফাতের কর্মীদের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, গত ২৫ ডিসেম্বর ‘চাচা নৌকা বিরোধী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী,অর্ধকোটি টাকা নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা হতে ঢাকায় ভাতিজা’ শিরোনামে সময়ের কাগজ নামের একটি পত্রিকার নিউজ নিজের টাইমলাইন ও ‘প্রতি সময়ের কুষ্টিয়া’ নামের একটি ফেসবুক গ্রুপে শেয়ার করে মাসুম বিল্লাহ নামের এক স্থানীয় এক সাংবাদিক। এছাড়াও শেয়ারদাতা ওই সাংবাদিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দপ্তর অফিসে দিন মজুরীতে কাজ করে বলে জানা গেছে।

মাসুম বিল্লাহ শেয়ারকৃত নিউজটির কিছু অংশ হুবহু তুলে ধরা হলো ‘আগামী ২০২২ সালের ৫ জানুয়ারি কুষ্টিয়া সহ দেশের ৭০৭ টি ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এই নির্বাচনে ক্ষমতাসীন সরকার দলীয় আওয়ামীলীগ থেকে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ করা হয়। সেই সাথে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের নৌকার মনোনয়ন প্রাপ্ত প্রার্থীর স্বপক্ষে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণাসহ সার্বিক সাহায্য সহযোগিতা করার আহ্বান জানান আওয়ামীলীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা। এবং এই আওয়ামীলীগের ছায়াতলে থেকে নৌকার বিপক্ষে অবস্থান কারীদের বিরুদ্ধে করা হুঁশিয়ারি দেন সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

তবে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ১১নং আব্দালপুর ইউনিয়নে দেখা গেছে তার ভিন্ন চিত্র। গত ২০১৬ সালের ইউপি নির্বাচনে নৌকার বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আলী মূর্তজা খসরূর বড় ভাই আলী হায়দার স্বপন (মাস্টার)। তবে এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ দেখা যায়নি আওয়ামীলীগের নেতাদের। ঠিক এবারের নির্বাচনেও একই পথ বেছে নিয়েছেন আলী মূর্তজা খসরূ, ভাইকে সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে দাড় করিয়ে নৌকার বিপক্ষে ভাইয়ের মটোর সাইকেল মার্কায় ভোট করতে দেখা গেছে তাকে। আর কুষ্টিয়া জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা হতে ঢাকাতেও বেশ দৌড়ঝাঁপ করছেন ছাত্রদলের এই ক্যাডার।

তথ্য অনুযায়ী, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সভাপতি মোঃ মমিনুল রহমান (মমিন) ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ হুমায়ুন বাবর ফিরোজ কমিটির গত ০৭/০৬/২০০৫ ইং তারিখের সাক্ষরিত বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কলা অনুষদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন আলী মুর্তজা খসরু। পরবর্তীতে ২০০৮ সালে পুনরায় আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে মুখোশ পাল্টে হয়ে যান ছাত্রলীগ। এবং বাগিয়ে নেন কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির পদ। সেই থেকে শুরু আলী মর্তুজা খসরুর নিয়োগ বাণিজ্য, টেন্ডারবাজি ব্যবসাসহ কোটি কোটি টাকা। পুনরায় আওয়ামীলীগের মাঠে লড়াই এর সময়ে মুখোশ পাল্টে নৌকার বিরুদ্ধে নেমে গেছেন ভাইয়ের ইউপি নির্বাচনের প্রচার প্রচারণায়। এবিষয়ে কুষ্টিয়া আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী ও আওয়ামীলীগের অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

এছাড়াও ওই নিউজটিতে আরাফাত ২০১৬ সালের ২৩ মার্চ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিসির নিচ তলায় অবস্থিত সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উপসনালয়ে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় ঘটান এবং ২০১৬ সালের ৩০ মার্চ রাতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ কর্তৃক শৃঙ্খলা পরিপন্থী কার্যক্রমে অংশ নেওয়ায় তাকে ছাত্রলীগ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয় বলেও উল্লেখ করা হয়।

নিউজটি শেয়ার দেওয়ার সাথে সাথে দৃষ্টিগোচর হলে আরাফাতের অনুসারীদের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ছাত্রলীগের কর্মী বিপুল ও অনিকের নেতৃত্বে ২০-২৫ জন কর্মী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দপ্তরে গিয়ে মাসুম বিল্লাহকে খোঁজাখুজি করে। তাকে না পেয়ে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসের কর্মকর্তাদের শাসিয়ে আসে তারা। পরে আইন বিভাগে কর্মরত মাসুম বিল্লাহর শশুর বাবুল হোসেনের কাছে যান এবং মাসুম বিল্লাহ ক্যাম্পাসে ঢুকলে হাত-পা ভেঙ্গে দেওয়ার হুমকি দিয়ে আসে। পরে আরাফাতের কর্মী তুষার বাদী হয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরী করে।

জিডিতে উল্লেখ করা হয়, গত ২৫ ডিসেম্বর দুপুর ২টায় প্রতি সময়ের কাগজের ইবি থানার স্থানীয় প্রতিনিধি মাসুম বিল্লাহ তার ফেসবুক আইডিতে টাইমলাইনে এবং পরবর্তীতে তার পত্রিকার পেজে “চাচা নৌকা বিরোধী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী, অর্ধকোটি টাকা নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা হতে ঢাকা ভাতিজা” শিরোনামে একটি নিউজ পোস্ট করে। যাহা সম্পূর্ণ অসত্য ও বানোয়াট। এমতাবস্থায় উপরোক্ত বিষয়ের প্রেক্ষিতে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক মোঃ ফয়সাল ছিদ্দিকী আরাফাতের রাজনৈতিক ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুন্ন হয়েছে বলে দাবী করে বাদী তুষার।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ